পড়াশোনা

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির গুরুত্ব ব্যাখ্যা করো

বর্তমান সময়ে আমরা ইন্টারনেটের যুগে বসবাস করছি। আজকের দিনে আপনি এমন খুব কম মানুষ কে খুঁজে পাবেন। যারা মূলত ইন্টারনেট সম্পর্কে জানে না। বরং আমাদের মধ্যে অধিকাংশ মানুষ আজকের দিনে বিভিন্ন ধরনের সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম গুলো ব্যবহার করে থাকে। আর এই ইন্টারনেট আমাদের জীবনে এতটাই ওৎপ্রত ভাবে জড়িয়ে পড়েছে যে। আমরা এখন যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম হিসেবে এই ইন্টারনেট কে ব্যবহার করে থাকি। এবং আপনি যদি উন্নত বিশ্বের দেশ গুলোর দিকে তাকান। তাহলে দেখতে পারবেন যে। সেই দেশ গুলো তে এই ইন্টারনেট কে কাজে লাগিয়ে আরো অনেক কাজ সম্পন্ন করে আসছে। আর সেই দিক থেকে আমাদের প্রত্যেক টা মানুষের এই তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির গুরুত্ব জেনে নেওয়া টা অত্যন্ত জরুরি হয়ে পড়েছে। আপনি যদি অনুসন্ধান করেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির গুরুত্ব ব্যাখ্যা করো এই প্রশ্নের উত্তর পেতে তবে এই আর্টিকেল আপনার জন্য। 

দেখুন একজন মানুষ হয়ে যখন আপনি কোন কিছু করবেন। তখন অবশ্যই সেই কাজ সম্পর্কে আপনার পূর্ণাঙ্গ ভাবে ধারণা থাকতে হবে। ঠিক তেমনি ভাবে যেহেতু আমরা আজকের দিনে এই তথ্য প্রযুক্তি কে ব্যবহার করছি। সেহেতু অবশ্যই আমাদের এই তথ্য প্রযুক্তি সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা রাখতে হবে। আর আপনি যাতে এই তথ্য প্রযুক্তি সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা নিতে পারেন। সে উদ্দেশ্য সাধন করার জন্যই আজকের এই আর্টিকেল টি লেখা হয়েছে। কেননা আজকের এই গুরুত্বপূর্ণ আর্টিকেল এর মাধ্যমে আমি আপনাকে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির গুরুত্ব কে খুব সহজ ভাবে তুলে ধরার চেষ্টা করব। আর আপনি যদি এই গুরুত্ব সম্পর্কে বিস্তারিত ভাবে জানতে চান। তাহলে অবশ্যই আপনাকে আজকের পুরো আর্টিকেল টি মনোযোগ দিয়ে পড়তে হবে।

দৈনন্দিন জীবনে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির গুরুত্ব

দৈনন্দিন জীবনে আমরা প্রত্যেকটা মানুষ কোন না কোন ভাবে এই তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহার করে থাকি। যেমন ধরুন, আমরা এখন ঘরে বসে টেলিভিশনের মাধ্যমে গোটা বিশ্বের খবর জানতে পারি। সেই সাথে অনেক দূর দূরান্তের মানুষের সাথে যোগাযোগ করার জন্য এখন আর কোন কোন স্থানে যাওয়ার প্রয়োজন পড়ে না। বরং আমাদের হাতে থাকা স্মার্টফোনের মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের সোশ্যাল মিডিয়া এর সাহায্য। আমরা পৃথিবীর এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তের মানুষদের সঙ্গে মাত্র কয়েক সেকেন্ডের মাধ্যমে যোগাযোগ করতে পারছি। 

পাশাপাশি আমাদের নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য গুলো এখন আমরা অনলাইনের মাধ্যমে অর্ডার করতে পারি। আর সেই অর্ডার করা পণ্য গুলো সরাসরি নিজের বাড়িতে এসে পৌঁছে যাচ্ছে। সেই সাথে আপনি যদি ভ্রমণ পিপাসু মানুষ হয়ে থাকেন। তাহলে আপনাকে আর ট্রেন কিংবা বাসের টিকিট কাটার জন্য লম্বা লাইনে দাঁড়াতে হবে না। বরং আমরা এখন নিজের ঘরে বসে অনলাইনের মাধ্যমে এই ধরনের যানবাহনের টিকিট গুলো সংগ্রহ করতে পারছি।

শিক্ষাক্ষেত্রে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির গুরুত্ব

আপনি যদি তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির গুরুত্ব সম্পর্কে জানতে চান। তাহলে আমি বলব যে, শিক্ষা ক্ষেত্রে এই তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অনেক প্রভাব ফেলেছে। কেননা বর্তমান সময়ে শিক্ষা কার্যক্রমের অনেক কিছুই ডিজিটাল পদ্ধতির মাধ্যমে সম্পন্ন করা হচ্ছে। যেমন ধরুন, এখন ইচ্ছা করলে অনলাইনের মাধ্যমে ক্লাস নেওয়া যায়। যেখানে শিক্ষকরা ইন্টারনেটের মাধ্যমে ছাত্রদের পাঠদান করাতে পারছে। এর পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের পড়াশোনা বিষয়ক বিভিন্ন ধরনের এক্সপেরিমেন্ট করার প্রয়োজন হয়ে থাকে। তো এই ধরনের এক্স পেরিমেন্ট গুলো এখন খুব সহজে ইন্টারনেটের মাধ্যমে সম্পন্ন করা যায়। বলা বাহুল্য যে, এই ইন্টারনেট কে ব্যবহার করার ফলে শিক্ষার্থীরা এখন সবকিছুই হাতের মুঠোয় পেয়েছে।

যেমন ধরুন, অতীতের দিন গুলো তে যখন একজন শিক্ষার্থী নতুন কিছু জানতে চাইত। তখন তাকে প্রচুর পরিমাণে বই ঘাটাঘাটি করতে হতো। তারপরে উক্ত বিষয় টি সম্পর্কে জ্ঞান অর্জন করতে পারত। কিন্তু আজকের দিনে একজন শিক্ষার্থী যে কোনো ধরনের প্রশ্ন গুগলের মধ্যে সার্চ করার পরে। মাত্র কয়েক সেকেন্ডের মধ্যেই সে উক্ত প্রশ্নের উত্তর টি খুঁজে নিতে পারছে। এর ফলে শিক্ষার্থীরা নতুন নতুন তথ্য গুলো কে খুব সহজে জানতে পারছে। সেজন্য আর বাড়তি সময় ব্যয় করার প্রয়োজন হয় না। আর এই সব সুবিধা গুলোর দিক থেকে অবশ্যই বলা যায় যে। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি শিক্ষা ক্ষেত্রে যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে।

যোগাযোগের ক্ষেত্রে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির গুরুত্ব

একটু অতীতের দিন গুলোর কথা চিন্তা করে দেখুন। তো সেই সময়ে যখন একজন মানুষ আরেক জন মানুষের সঙ্গে যোগাযোগ করত। তখন এই যোগাযোগ করার একমাত্র মাধ্যম ছিল চিঠি। আর সেটি ছিল অনেক সময় সাপেক্ষ ব্যাপার। কেননা একটি চিঠি আপনার কাঙ্ক্ষিত মানুষের কাছে পৌঁছাতে বেশ কয়েক দিন পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হতো। তবে সেই দিন গুলোর থেকে বর্তমান দিনের কথা চিন্তা করে দেখুন। এখন কি মানুষ কে আর দিনের পর দিন অপেক্ষা করতে হয়? -না! বরং আমরা এখন মাত্র কয়েক সেকেন্ডের ব্যবধানে পৃথিবীর এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে থাকা ব্যক্তির সাথে যোগাযোগ করতে পারছি।

কেননা আমাদের প্রত্যেকের হাতে এখন স্মার্টফোন রয়েছে। আর এখন আমরা ইচ্ছা করলেই মোবাইলে কল দিয়ে সরাসরি কথা বলতে পারি। অথবা আজকের দিনে ইন্টারনেটের মধ্যে বিভিন্ন ধরনের সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম রয়েছে। আমরা চাইলে এই সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্ম গুলোর সাহায্য। খুব দ্রুততার সাথে একজন ব্যক্তি অন্য আরেক জন ব্যক্তির সাথে যোগাযোগ করতে পারছি। তাহলে এটা নিশ্চিন্তে বলা যায় যে, যোগাযোগ ব্যবস্থা ক্ষেত্রে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির গুরুত্ব অপরিসীম।

কর্মক্ষেত্রে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির গুরুত্ব

কর্মক্ষেত্রের দিক থেকেও আপনি তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির যথেষ্ট পরিমাণে গুরুত্বপূর্ণ লক্ষ্য করতে পারবেন কেননা এই তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি উন্নয়নের ফলে এখন কর্মক্ষেত্রে ব্যাপক পরিবর্তন লক্ষ্য করা যায় কেননা আগেকার দিনের কলকারখানা গুলোতে যে কাজগুলো অনেক বিপদজনক ছিল বর্তমান সময়ে সেই কাজগুলো অনেক উন্নত মানের রোবটের সাহায্য করা হয়ে থাকে এর ফলে সেই কাজটি খুব দ্রুততার সাথে সম্পন্ন করা যায় এবং বাড়তি সময় অপচয় রোধ করা যায় এর পাশাপাশি একটি কাজ মানুষের মাধ্যমে করতে যে পরিমাণ সময় লাগে তার থেকে অনেক কম সময়ে একটি রোবট উক্ত কাজগুলো করতে পারে এর পাশাপাশি একটি কাজের জন্য যতগুলো শ্রমিককে বেতন ভাতা ইত্যাদি দেওয়ার প্রয়োজন হয় রোবট দিয়ে সেই কাজগুলো করার ফলে আর বাড়তি খরচ করার প্রয়োজন হয় না।

ব্যবসায়ে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির গুরুত্ব

আমরা সবাই জানি যে, একটি ব্যবসা কে পরিচালনা করার জন্য অনেক গুলো মানুষের প্রয়োজন হয়ে থাকে। কিন্তু এই ব্যবসায়ীক ক্ষেত্রে এখন কম্পিউটারের ব্যবহার করা হয়। যার ফলে কোন একটি ব্যবসা কে পরিচালনা করার জন্য যত গুলো হিসেব-নিকেশ করতে হয়। তা মূলত কম্পিউটারে ব্যবহার করা সফটওয়্যার এর মাধ্যমে খুব দ্রুততার সাথে সম্পন্ন করা যায়। এর পাশাপাশি আপনি যদি অনলাইনে ব্যবসা করে থাকেন। সে ক্ষেত্রে মানুষ এখন তাদের কম্পিউটারের সাহায্য ইন্টারনেট কে কাজে লাগিয়ে প্রোডাক্ট অর্ডার করতে পারে। এবং আপনি সেই প্রোডাক্ট গুলো আপনি আপনার কাঙ্খিত কাস্টমারের নিকট পাঠিয়ে দিতে পারবেন। মূলত এই যাবতীয় কাজ গুলো আপনি তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির মাধ্যমে করতে পারছেন। সেই সাথে মানুষ এখন ইন্টারনেট এর মাধ্যমেই যাবতীয় পেমেন্ট এর কাজ গুলো সম্পন্ন করতে পারছে।

তথ্য প্রযুক্তি ও কিছু কথা

প্রিয় পাঠক, উপরের এই আলোচনা থেকে আমরা তথ্য প্রযুক্তির গুরুত্ব সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করেছি। আর আপনি যদি এই আলোচিত আলোচনা গুলো পড়ে থাকেন। তাহলে আমার দীর্ঘ বিশ্বাস যে, এতক্ষণে আপনার বিভিন্ন ক্ষেত্রে তথ্য প্রযুক্তির গুরুত্ব সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা চলে এসেছে। আর আপনি যদি এই ধরনের গুরুত্বপূর্ণ তথ্য গুলো কে খুব সহজ ভাষায় জেনে নিতে চান। তাহলে অবশ্যই আমাদের সাথে থাকবেন। আর পুরো আর্টিকেল টি পড়ার জন্য আপনাকে জানাচ্ছি অসংখ্য ধন্যবাদ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button